বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭ || সময়- ৫:৫৯ pm
৬ অক্টোবর এমবিবিএস, ১০ নভেম্বর বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা
বুধবার ২ আগস্ট ২০১৭ , ৮:৪৬ pm
Mbbs-bds_prohor

প্রহরনিউজ, ঢাকা: ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা হবে ১০ নভেম্বর। ১ সেপ্টেম্বর থেকে দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত ‘২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তি সংক্রান্ত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সুন্দরভাবে যাতে এমবিবিএস ও বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া যায় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। যাতে এ পরীক্ষা নিয়ে কোনো প্রকার প্রশ্ন না উঠে।’ তিনি ভুয়া প্রশ্নপত্রের ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রাখার পাশাপাশি ভর্তি পরীক্ষার জন্য ভাল করে পড়াশোনা করতে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান।

এমবিবিএস ও বিডিএস ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে ১ সেপ্টেম্বর থেকে দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘কোচিং সেন্টার বন্ধে প্রয়োজনে আইনশৃংখলা বাহিনীর সহায়তা নিন। ভর্তি পরীক্ষার সময় কিছু মহল ভুয়া প্রশ্নপত্র বানিয়ে শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত এবং নিরীহ অভিভাবকদের সঙ্গে প্রতারণা করে। এই চক্র প্রতিরোধ করতে হলে পরীক্ষার সময় কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস কিংবা ভুয়া প্রশ্ন বিতরণের মতো ঘটনা যাতে কোনোভাবে না ঘটে সেদিকে সবাইকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। গতবছরের মতো এবারও যাতে নিখুঁত ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া যায় তার জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে।

মেডিক্যাল শিক্ষার মান যেকোনো মূল্যে ধরে রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মান ধরে রাখতে হবে। একই সঙ্গে সরকারি নীতিমালাও মানতে হবে। না হলে কলেজ বন্ধ করে দেওয়া হবে। নীতিমালা ভঙ্গকারী মেডিক্যাল কলেজগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

সভায় স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. ইসমাইল খান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান, বিএমএ মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক দুলাল, বাংলাদেশ বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ সমিতির সভাপতি আলহাজ মকবুল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।