বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ || সময়- ৯:৫০ pm
রোহিঙ্গাদের দুটি নৌকা ডুবিতে নারী-শিশুসহ ২৩ জনের মৃত্যু
শুক্রবার ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ৩:১৮ am
নারী-শিশুসহ ২৩ জনের মৃত্যু.jpeg

প্রহরনিউজ, প্রবাস: টেকনাফে রোহিঙ্গাবাহী দুটি নৌকাডুবির ঘটনায় আরও ১৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৩ জনে দাঁড়ালো। নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টার সময় টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের কাছে এই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার ভোরে তাদের লাশ পাওয়া যায়। এর আগে বুধবার ছয়জনের লাশ পাওয়া গিয়েছিল।

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ নুরুল আমিন জানান, গতকাল বুধবার রাত দেড়টা ও আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে নাফ নদীর জলসীমানা অতিক্রম করে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের সময় এই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। বেশির ভাগ শিশু ও নারী সাঁতরে কূলে উঠতে না পারায় ডুবে মারা যান। আজ সকাল ৮টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত ১৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ওই নৌকা দুটিতে ধারণ ক্ষমতার চেয়েও ২২ থেকে ২৫ জন যাত্রী বেশি ছিল।

নিহত ব্যক্তিরা মিয়ানমারের মংডু শহরের দংখালী ও ফাতংজা এলাকার বাসিন্দা বলে জীবিত উদ্ধার হওয়া লোকজনের কাছ থেকে জানা গেছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরজুল হক টুটুল জানান, ‘আজ ভোররাত পর্যন্ত নাফ নদীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ১৯ নারী-শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এরমধ্যে ১০টি শিশু ও নয়জন নারী রয়েছে।

টেকনাফ ২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল এস এম আরিফুল ইসলাম জানান, নৌকাডুবির ঘটনায় বুধবার চারজন ও বৃহস্পতিবার ১৯ চারজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল বুধবার সকাল ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত আরো তিনটি নৌকাডুবির ঘটনায় ছয়জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই ছয়জনের মধ্যে তিনজন নারী ও তিনজন শিশু।

গত সপ্তাহে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সে দেশের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা মুসলমানদের হত্যা, নির্যাতন এবং বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগের অনেকেই বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করেছে।

বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বা বিজিবি সীমান্তে কড়াকড়ি বজায় রাখলেও অনেক রোহিঙ্গা মুসলমান বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে।

গত শুক্রবার থেকেই বাংলাদেশের ভেতরে রোহিঙ্গাদের আসার প্রবণতা বাড়তে থাকে।

এর আগে গত বছরের শেষের দিকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনী দমন-পীড়ন শুরুর পর হাজার-হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান সে দেশ থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসে।

জাতিসঙ্ঘের হিসেবে সে সময় ৭০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছিল। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা বা আইওএম বলছে, গত এক সপ্তাহে মিয়ানমার থেকে প্রায় ১৮ হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান সে দেশ থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসেছে।