বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ || সময়- ১২:১৯ pm
এক লাখ রোহিঙ্গার আশ্রয়কেন্দ্র বানিয়ে দেবে তুরস্ক
রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ৩:২৪ pm
রোহিঙ্গার আশ্রয়কেন্দ্র.jpg

প্রহরনিউজ, সুখবর: মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অত্যাচার ও নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা এক লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে তুরস্ক।

২৪ সেপ্টেম্বর রোববার সকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করে এই আগ্রহের কথা জানিয়েছন তুরস্কের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সহযোগিতাবিষয়ক সংস্থার সমন্বয়ক আহমেদ রফিক।

আহমেদ রফিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে রোহিঙ্গা পরিস্থিতিসহ দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ করেন। এ ছাড়া তুর্কি সরকারের প্রতিনিধি রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিষয়টিকে ‘অমানবিক’ হিসেবে উল্লেখ করে সমস্যার দ্রুত সমাধানের আশা করেন তিনি।  

আহমেদ রফিককে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী জানান, একান্ত মানবিক কারণে মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের মনোভাব ও অবস্থান তুর্কি সরকারের প্রতিনিধিকে অবহিত করেন ত্রাণমন্ত্রী।

আর আহমেদ রফিক ত্রাণমন্ত্রীকে জানান, রোহিঙ্গা সমস্যার সুষ্ঠু সমাধানে তুরস্ক বাংলাদেশের পাশে থাকবে। বাংলাদেশে আসা ১ লাখ রোহিঙ্গাদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে দেবে তুরস্ক। তুরস্ক শিগগির ১৩টি আইটেমের সমন্বয়ে প্রস্তুত ১০ হাজার প্যাকেট ত্রাণসামগ্রী দেবে তুরস্ক।

এ ছাড়া তুরস্ক সরকারের প্রতিনিধি আরও জানান, শিগগির তুর্কি উপপ্রধানমন্ত্রী রিসেপ আব্বাস বাংলাদেশ সফর করবেন।  

উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্টে রাখাইন রাজ্যে সেনা মোতায়েনের পর ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা ‘জাতিগত নিধন’ শুরু করে। ঘটনায় প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী। পুরানো ৫ লাখ রোহিঙ্গার সঙ্গে নতুন অভিযানে ইতোমধ্যে যোগ হয়েছে আরও প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা।

সারা বিশ্বে ইউএনএইচসিআর কতৃক নিবন্ধিত ১৭.২ মিলিয়ন শরণার্থীর ৩০% এখন বাংলাদেশে। এরই মধ্যে চলমান রোহিঙ্গা ঢল অব্যাহত থাকলে শরণার্থীর এ সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছাতে পারে বলেও সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। এত সংখ্যক শরণার্থীর দায়িত্ব তাদের পক্ষেও নেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।


সূত্র : প্রিয়.কম