মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭ || সময়- ৬:৩০ pm
শারীরিক সম্পর্ক করার জন্যই রোনালদো আমাকে ব্যবহার করেছে: নাতাশা রদ্রিগেজ
রবিবার ১২ নভেম্বর ২০১৭ , ১২:৪৭ pm
ron-natacha_288x160.png

প্রহরনিউজ, বিনোদন: ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর জীবনে বান্ধবীদের আনাগোনা নতুন নয়। ইরিনা শায়েকের সঙ্গে দীর্ঘ দিনের সম্পর্কের বিচ্ছেদের পর রোনালদোর প্রেমের তরী ভিড়েছে বিভিন্ন ঘাটে। কিন্তু কেউই বেশি দিন সঙ্গে থাকতে পারেননি। আপাতত নিজের ২৩তম বান্ধবী জর্জিনা রদ্রিগেজকে নিয়ে খোশমেজাজেই আছেন রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা ফরোয়ার্ড। আর থাকবেন নাই বা কেন! তার বান্ধবী যে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বলা যায়, গত এক বছর ধরেই জর্জিনার সঙ্গে মধুর সময় কাটাচ্ছেন রোনালদো।

কিন্তু এর মধ্যেই বোমা ফাটালেন পর্তুগীজ টিভি তারকা নাতাশা রদ্রিগেজ। ২১ বছর বয়সী এই মডেল দাবি করছেন, জর্জিনার সঙ্গে সম্পর্ক থাকাকালীন তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক ছিল রোনালদোর। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম ‘দ্য সান’ এ রোনালদোর সঙ্গে গত দুই বছরের সকল গোপন চ্যাটিংয়ের তথ্য প্রকাশ করেছেন নাতাশা। পর্তুগীজ এই মডেলের দাবি, শুধুমাত্র শারীরিক সম্পর্ক করার জন্যই রোনালদো তাকে ব্যবহার করেছেন এবং পরবর্তীতে তাকে ভুলে গেছেন।

ইরিনা শায়েকের সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছেদের পরই রোনালদোর সঙ্গে পরিচয় হয় নাতাশার। প্রথমে শুধুই মেসেজিং হত দুজনার মধ্যে। এরপর দেখা হয় এবং পরবর্তীতে রোনালদোর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কও হয় তার। চলতি বছরের মার্চ পর্যন্তও তাদের যোগাযোগ ছিল। এ সময় তার শরীরের প্রতি রোনালদো পাগল ছিলেন বলে জানান নাতাশা। শুধু তাই নয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রোনালদো বারবার তার শরীরের ছবি ও ভিডিও চাইতেন বলেও জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে নাতাশার ভাষ্য, ‘আমি জানতাম তার বান্ধবী আছে। তবুও আমরা বন্ধু হয়েছিলাম। ধীরে ধীরে ঘনিষ্ঠ হলাম। সে আমার শরীর খুব পছন্দ করতো। বিশেষ করে আমার পশ্চাৎদেশ। সে বারবারই তা দেখতে চাইত। আমি শুধু ছবি না, ভিডিও পাঠাতাম তাকে। সে একবার বলেছিল, আমি তোমায় চুমু খেতে চাই একান্তে। এরপর রোনালদো আমাকে তার ফ্লাটের ঠিকানা দেয়।’

গত বছরের অক্টোবরের পাঁচ তারিখ রোনালদো তার লিসবনের বিলাশবহুল ফ্লাটে নাতাশাকে আমন্ত্রণ জানান। এ প্রসঙ্গে নাতাশা বলেন, ‘যখন রোনালদোর ফ্লাটে যাচ্ছিলাম, আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না। আমার হৃদস্পন্দন বেড়ে যাচ্ছিল। যখন তার ফ্লাটে পৌঁছালাম, রোনালদো আমাকে বলল নিজের ঘর মনে করতে। আমি আমার জুতো খুলে ফ্রিজ থেকে জুস বের করে তার সামনে গিয়ে বসলাম। এরপর তার সামনে নিজেকে উন্মুক্ত করে দিলাম। মোট দুই ঘণ্টা ছিলাম আমি তার সঙ্গে।’

সে রাতে রোনালদো তাকে একটি বেসবল ক্যাপ উপহার দিয়েছিলেন বলে জানান নাতাশা। বলেন, ‘আমি এরআগে শুধু টিভিতেই তার শরীর দেখেছিলাম। তবে সামনাসামনি সে আমাকে নিরাশ করেনি। অন্তরঙ্গভাবে এক ঘণ্টারও বেশি সময় কাটে আমাদের। এরপর তার ওয়্যারড্রোব দেখিয়ে বলে তোমার যা পছন্দ হয় নাও। আমি বেসবল ক্যাপ বেছে নিয়েছিলাম। কারণ আমি হ্যাট অনেক পছন্দ করি। সে অনেক ভাল, আমাকে ৩০০ ইউরো দিল যেন আমি ট্যাক্সিতে বাড়ি ফিরতে পারি। অসাধারণ একটা রাত ছিল।’

রোনালদো এই সম্পর্কের কথা নাতাশাকে গোপন রাখতে বলেন। এ প্রসঙ্গে ২১ বছর বয়সী পর্তুগীজ এই মডেল বলেন, ‘পরদিন আমি তাকে মেসেজ পাঠিয়েছিলাম যে রাতে অনেক উপভোগ করেছি। রোনালদো উত্তরে জানায়, সেও উপভোগ করেছে। আর রাতের কথা গোপন রাখতে বলে। এরপর আরও অনেকক্ষণ মেসেজ আদান-প্রদান হলেও যখনই টিভি রিয়েলিটি শোতে যাওয়ার কথা জানাই তারপর থেকে ও আর উত্তর দিচ্ছিল না।’

পর্তুগালের একটি টিভি রিয়েলিটি শো'তে ডাক পেয়েছিলেন নাতাশা। রোনালদোকে সঙ্গে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল তার। কিন্তু রোনালদো তাকে সেখানে যেতে বারণ করেন। যদিও এর আগেই চুক্তি সাক্ষর করেছিলেন নাতাশা। পরবর্তীতে সেই টিভি শোতে নাতাশা একাই যান। সেখানে রোনালদোর নাম মেনশন না করলেও মেসেজ পাঠিয়েছিলেন নাতাশা। কিন্তু রোনালদো যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। দু'মাস পরে হোয়াটসঅ্যাপে রোনালদোর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন নাতাশা।

সেখানেও তাকে ব্লক করে দেন সিআরসেভেন। এরপর আর রোনালদোর সঙ্গে যোগাযোগ হয়নি নাতাশার। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সে যখন আমাকে হোয়াটসঅ্যাপেও ব্লক করে দিল, আমার কেমন জানি লাগছিল। তবে এখন আমার মনে হয়, সে শারীরিক সম্পর্ক করার জন্য আমাকে ব্যবহার করেছিল। যদিও এখন আমার কোন অনুশোচনা নেই। কারণ সে আমার স্বপ্নপুরুষ ছিল। যদিও আমার মনে হয়, প্রতারিত হয়েছি। আশা করি জর্জিনার কাছে বিশ্বস্ত থাকবে রোনালদো।’

সূত্র: দ্য সান/ ডেইলি স্টার