বুধবার ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ || সময়- ২:২৯ am
সচিব পর্যায়েও বড় রদবদল আসছে
বুধবার ৩ জানুয়ারী ২০১৮ , ১১:২১ pm
Government_432x591

প্রহরনিউজ, জাতীয়: মন্ত্রিসভায় রদবদলের রেশ কাটতে না কাটতেই আবার শোনা যাচ্ছে পরিবর্তনের কথা। এবার পরিবর্তন আসছে সচিব পর্যায়ে। মন্ত্রিসভার মতো বড় পরিসরেই এই পরিবর্তন হতে পারে।

সংশ্লিষ্টদের মতে, মূলত দুটি কারণে সচিব পর্যায়ে বড় রদবদল হতে যাচ্ছে। প্রথমত অনেক মন্ত্রণালয়ে রদবদলের কারণেও সচিবদের মন্ত্রণালয় পরিবর্তন হবে। কারণ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর সঙ্গে সাবলীলভাবে কাজে সক্ষম এমন সচিবই নিয়োগ দিতে চায় সরকার। না হলে, মন্ত্রিসভায় বড় রদবদলের মূল উদ্দেশ্য, মন্ত্রণালয়ের গতিশীলতা আনা, অনেকক্ষেত্রেই ব্যাহত হতে পারে।

আবার একাধিক সচিবের মেয়াদ একদম শেষ পর্যায়ে। প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায়ে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছে সরকার, কারণ চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের কারণে পদোন্নতির ক্রমে বড় ধরনের সংকট দেখা দেয়। তাই মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়া সচিবালয়ের শীর্ষ পদগুলোতে আসবে অনেক নতুন মুখ।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে রদবদল হওয়া মন্ত্রীদের সঙ্গে সাবলীলভাবে কাজের জন্য সচিব পর্যায়ে পরিবর্তন আসছে। এক্ষেত্রে পরিবর্তনের আসতে পারে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি, বন ও পরিবেশ, পানিসম্পদ, তথ্য ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে।

সচিবালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, পরিবর্তনের হাওয়া এরই মধ্যে এসেছে। গত ৩০ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের অবসরে যান। চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়ে তাঁর এক্সটেনশন হতে পারে গুঞ্জন থাকলেও শেষ পর্যন্ত ঘটেনি। ওই দিন থেকেই প্রধানমন্ত্রী মুখ্য সচিব হয়েছেন এনবিআর’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নজিবুর রহমান। আর সপ্তাহ না পেরোতেই বুধবার এনবিআরের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। আবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব সুরাইয়া বেগমও অবসরে যাচ্ছেন চলতি মাসের ৩১ তারিখে। মুখ্য সচিবেরর পরিবর্তনের পরিপ্রেক্ষিতে এখানেও পরিবর্তন আসবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। একই ভাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ছাড়াও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে মেয়াদ শেষ হওয়া কর্মকর্তাদের স্থলে নতুন মুখ দেখা যাবে।

সরকারের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানিয়েছে, সচিব পর্যায়ের পরিবর্তনে জ্যেষ্ঠতার ক্রম বজায় রাখাকে গুরুত্ব দেওয়া হবে। একই সঙ্গে নির্দিষ্ট মন্ত্রণালয়ের গতিশীলতার জন্য প্রয়োজনকেও প্রধান্য দেওয়া হবে।


সূত্র : বাংলা ইনসাইডার