শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ || সময়- ৯:৪০ am
প্রতিবছর জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যান্সারে ১৪ হাজার মহিলার মৃত্যু
বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০১৮ , ৮:২০ am
জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যান্সারে

প্রহরনিউজ, নারী: বাংলাদেশে মহিলাদের মধ্যে জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যান্সার অন্যতম প্রধানতম ক্যান্সার। প্রতিবছর নতুনভাবে জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যান্সারে নতুন আক্রান্ত হয় ২৬৭৯২ জন। এর মধ্যে ১১৯৫৬ জন মহিলা জরায়ুমুখ ক্যান্সারে এবং ১৪৮৩৬ জন মহিলা স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। মারা যায় প্রায় ১৪ হাজার। এদের মধ্যে ৬৫৮২ জন মহিলা জরায়ুমুখ ক্যান্সারে এবং ৭১৪২ জন মহিলা স্তন ক্যান্সারে মারা যায়।
২০১৭ সাল পর্যন্ত প্রায় ৩২ লাখ ভায়া ও সিবিই স্ক্রিনিং পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে ১৬,৪৭,৩৮০ জন মহিলার ভায়া স্ক্রিনিং করা হয়েছে। ১৬,৪৭,৩৮০ জন মহিলার মধ্যে ১৫,৪৪,২৮৬ জন মহিলার সিবিই স্ক্রিনিং সম্পন্ন করা হয়েছে। পজেটিভ প্রায় ১ লাখ। এর মধ্যে জরায়ুমুখ ক্যান্সার নির্ণয়ের পরীক্ষায় ৭৫২২৭ জন মহিলার ভায়া পজিটিভ ও স্তন ক্যান্সার নির্ণয়ের পরীক্ষা ২১,২৫০ মহিলার সিবিই পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। ২৩৫৮৮ জন মহিলা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস অ্যান্ড গাইনি বিভাগ ও সার্জারি বিভাগ হতে কল্পোস্কোপি পরীক্ষাসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন।

এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বদরুন্নেসা, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের মহাপরিচালক তন্দ্রা শিকদার। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অবস অ্যান্ড গাইনি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. পারভীন ফাতেমা। বাংলাদেশে জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যান্সার স্ক্রিনিং ও প্রতিরোধ কার্যক্রম উপস্থাপন করেন অধ্যাপক ডা. আশরাফুন্নেসা। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন  এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট মেম্বার ও সার্জারি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মো. ছয়েফ উদ্দিন আহমেদ।